রকেট ফোর্স বানাতে চলেছে ভারত, হতবাক চীন-পাকিস্তান

by Chhanda Basak

ডিজিটাল ডেস্ক : চীন ও পাকিস্তান থেকে ভারতের জন্য সবসময়ই হুমকি রয়েছে। এসব হুমকি মোকাবেলায় ভারত পুরোপুরি প্রস্তুত। এই দুই দেশকেই উপযুক্ত জবাব দিতে ভারত রকেট বাহিনী গড়ে তোলার চেষ্টা করছে। মিডিয়া রিপোর্ট অনুসারে, প্রতিরক্ষা মন্ত্রক ৭৫০০ কোটি টাকারও বেশি ব্যয়ে ২৫০ ইউনিট ব্যালিস্টিক মিসাইল প্রলয়ের জন্য একটি অর্ডার দিতে চলেছে। ২০২২ সালের ডিসেম্বরে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক ভারতীয় বায়ুসেনার জন্য এই ক্ষেপণাস্ত্রগুলির একটি নতুন ইউনিট অনুমোদন করার পরে এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

India is going to make rocket force pralay missile

ভারত যে প্রলয় ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ে কাজ করছে তার বিশেষত্ব হল, যুদ্ধের পরিস্থিতিতে প্রলয় ক্ষেপণাস্ত্র ১৫০ থেকে ৫০০ কিলোমিটার দূরের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম। শত্রুরা চাইলেও বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা থেকে প্রলয় মিসাইল ঠেকাতে পারে না। প্রলয়ের এবং রেঞ্জ বাড়ানোর কাজ চলছে। প্রথমে এই মিসাইল ভারতীয় বিমানবাহিনীতে, তারপর ভারতীয় স্থল সেনাবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

কেন ভারতের রকেট ফোর্স দরকার?

ভারতের পূর্বে চীন এবং পশ্চিম সীমান্তে পাকিস্তানের মতো দেশগুলোর দ্বৈত চ্যালেঞ্জ রয়েছে। এই দুই শত্রু দেশের সঙ্গে যুদ্ধের সম্ভাব্য পরিস্থিতিতে ভারত তার শক্তিকে কাজে লাগানোর জন্য পূর্ণ প্রস্তুতি নিচ্ছে ও শক্তি বাড়াচ্ছে। এতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে রকেট ফোর্স। চীনের সাথে ভারতের ৩৪০০ কিলোমিটার দীর্ঘ সীমান্ত রয়েছে। একই সঙ্গে কাশ্মীর থেকে গুজরাট পর্যন্ত ভারতের দীর্ঘ সীমান্ত ঘেঁষে রয়েছে পাকিস্তানও। এমতাবস্থায় এই দীর্ঘ সীমান্তে যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় রকেট ফোর্স গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। রকেট ফোর্সের অ্যাকশন এতটাই নিখুঁত হবে যে চীন ও পাকিস্তান সুযোগ পাবে না।

আরও পড়ুন: সুপ্রিম কোর্টে সমকামী বিয়ের বিরোধিতা করল কেন্দ্র

রকেট ফোর্স সম্পর্কে জানুন

রকেট বাহিনী ভবিষ্যতের যুদ্ধে দ্রুত এবং দ্রুত সিদ্ধান্তমূলক বিজয় অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। ট্যাঙ্ক এবং ফাইটার জেটের ঐতিহ্যবাহী যুদ্ধের বাইরে, রকেট ফোর্স একটি অস্ত্র হিসাবে স্বীকৃত হতে সক্ষম হবে যা দ্রুত ফলাফল নিয়ে আসে। ভবিষ্যৎ যুদ্ধে, মাটিতে সৈন্য মোতায়েন না করেই শত্রুর কৌশলগত এবং সামরিক ঘাঁটি দ্রুত এবং সিদ্ধান্তমূলক ভাবে আঘাত করার জন্য উদ্ভাবনী উপায় খোঁজা হচ্ছে। এর মধ্যে একটি উপায় হবে ক্ষেপণাস্ত্রের মাধ্যমে।

এতে লাভবান হবে ভারত

রকেট ফোর্স গঠনের ফলে ভারতীয় সেনাবাহিনীর কর্পস অফ আর্টিলারি থেকে চাপ সরানো হবে। এই বাহিনী ভারতের কৌশলগত অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ করার সময় সুযোগ পেলেই তাৎক্ষণিক প্রতিশোধমূলক পদক্ষেপ নিতে সক্ষম। ভারতের রকেট বাহিনী দিয়ে হামলা চালাতে সাহস পাবে না পাকিস্তান। এতে সেনাদের হতাহতের সংখ্যাও কমবে।

আরও পড়ুন : কারাগারে বন্দীদের কেন সাদা পোশাক পরানো হয়? জেনেনিন

প্রলয় ক্ষেপণাস্ত্র যুদ্ধের গতিপথ পরিবর্তন করতে পারে

প্রলয় আসলে একটি অর্ধেক ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র। যা মাটি থেকে মাটিতে আছড়ে পড়ে। DRDO পৃথ্বী ও প্রহর ক্ষেপণাস্ত্রের সমন্বয়ে প্রলয় ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করেছে। ব্রহ্মোস সুপারসনিক ক্রুজ মিসাইল ছাড়াও, এটি ভারতের দ্বারা মোতায়েন করা একমাত্র প্রচলিত কৌশলগত যুদ্ধক্ষেত্রের ক্ষেপণাস্ত্র। এর অপারেশন রকেট ফোর্সের হাতে থাকবে, ভারতের স্ট্র্যাটেজিক ফোর্সেস কমান্ডের হাতে নয়। প্রলয় ক্ষেপণাস্ত্র ৩৫০ থেকে ৭০০ কেজি ওজন বহন করতে সক্ষম। এই ক্ষেপণাস্ত্রটি অরুণাচল প্রদেশ এবং লাদাখে চীনা সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ সুবিধা দিতে পারে।

NEWS24-BENGALI.COM

NEWS24-BENGALI.COM brings to provide the latest quality Bengali News(বাংলা খবর, Bangla News) on Crime, Politics, Sports, Business, Health, Tech, and more on Digital Platform.

Edtior's Picks

Latest Articles

Copyright © 2024 NEWS24-BENGALI.COM | All Rights Reserved.