Early symptoms of uterine cancer: প্রস্রাব বা সহবাসের সময় ব্যথা জরায়ু ক্যান্সারের লক্ষণ হতে পারে

এখন পর্যন্ত এটা বিশ্বাস করা হত যে জরায়ু ক্যান্সার(Uterine Cancer) শুধুমাত্র পঞ্চাশ বছরের বেশি বয়সী মহিলাদের সমস্যায় ফেলে। কিন্তু আজকাল তরুণীদের মধ্যেও এর ঝুঁকি বাড়ছে। তাই এর লক্ষণগুলো সম্পর্কে আপনার জানা জরুরী।

by Chhanda Basak
Early symptoms of uterine cancer and treatment

জরায়ু ক্যান্সারকে(Uterine Cancer) এন্ডোমেট্রিয়াল ক্যান্সারও(Endometrial cancer) বলা হয়। এটি সারা বিশ্বের মহিলাদের প্রভাবিত করে। এই ক্যান্সার সাধারণত মেনোপজ সম্পন্ন করা মহিলাদের মধ্যে দেখা যায়। যদিও এই ক্যান্সার বয়স্ক মহিলাদের মধ্যে দেখা দেয়, তবে আজকাল যুবতী মহিলাদের মধ্যেও এর ঘটনা বাড়ছে। এর লক্ষণগুলির মধ্যে একটি হল প্রস্রাব করার সময় ব্যথা, যা প্রায়শই উপেক্ষা করা হয়, তবে এটি জরায়ু ক্যান্সারের সূচনার লক্ষণ হতে পারে (Early signs of uterine cancer)।

জরায়ু ক্যান্সার কি এবং কীভাবে এটি সময়মতো শনাক্ত করা যায় তা নিয়ে পাতিয়ালার মণিপাল হাসপাতালের ডাঃ অনিন্দিতা একটি প্রতিবেদনে বলেছেন। ডাঃ অনিন্দিতা এখানে একজন কনসালট্যান্ট প্রসূতি ও স্ত্রীরোগ।

Early symptoms of uterine cancer and treatment

অনেক কারণে জরায়ু ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যায় (Causes of uterine cancer)

  • বয়স: এটি বেশিরভাগই 50 বছরের বেশি বয়সী মহিলাদের ক্ষেত্রে ঘটে।
  • হরমোনের ভারসাম্যহীনতা: প্রোজেস্টেরন ছাড়া উচ্চ ইস্ট্রোজেনের মাত্রা এন্ডোমেট্রিয়াল হাইপারপ্লাসিয়া সৃষ্টি করতে পারে, একটি প্রাক-ক্যান্সারজনিত অবস্থা।
  • স্থূলতা: শরীরে অতিরিক্ত চর্বি ইস্ট্রোজেনের মাত্রা বাড়ায়।
  • পারিবারিক ইতিহাস: জরায়ু বা কোলন ক্যান্সারের পারিবারিক ইতিহাস ঝুঁকি বাড়ায়।
  • জীবনধারা: শারীরিক কার্যকলাপের অভাব এবং একটি অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস এর ঝুঁকি বাড়ায়।

প্রস্রাবের সময় ব্যথা সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণ (Pain during urination)

প্রস্রাবের সময় ব্যথা প্রায়শই মূত্রনালির সংক্রমণ (UTI) বা অন্যান্য ছোটখাটো সমস্যার কারণে হয়। তবে এটি জরায়ু ক্যান্সারের লক্ষণও হতে পারে। এই ব্যথা টিউমারের কারণে মূত্রাশয়ের উপর চাপের কারণে বা ক্যান্সার কোষগুলি মূত্রতন্ত্রে ছড়িয়ে পড়ার কারণে হতে পারে।

আপনি যদি প্রস্রাব করার সময় ঘন ঘন ব্যথা অনুভব করেন তবে অবশ্যই একজন ডাক্তারের সাথে কথা বলুন।

জরায়ু ক্যান্সারের অন্যান্য উপসর্গ কি কি?

  1. যোনিপথে রক্তপাত
  2. পেলভিক অঞ্চলে ব্যথা
  3. যৌন কার্যকলাপের সময় ব্যথা
  4. হঠাৎ ওজন কমে যাওয়া

তরুণীদের মধ্যেও জরায়ু ক্যান্সারের ঘটনা বাড়ছে

আগে বয়স্ক মহিলাদের জরায়ু ক্যান্সার হত। কিন্তু বর্তমানে, যুবতী মহিলাদের, বিশেষ করে ৩০ থেকে ৪০ বছর বয়সী মহিলাদের মধ্যেও এটি বাড়ছে। ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ (ICMR) দ্বারা পরিচালিত একটি সমীক্ষা অনুসারে, ভারতীয় মহিলাদের মধ্যে জরায়ু ক্যান্সারের বেশি ঘটনা ঘটেছে।

মহিলাদের মধ্যে সমস্ত ক্যান্সারের ক্ষেত্রে ৪% জরায়ু ক্যান্সার, এতে আক্রান্ত তরুণীদের সংখ্যা বাড়ছে। প্রধান কারণ স্থূলতা এবং জীবনধারা।

আরও পড়ুন: প্রেগনেন্সিতে সবসময় খালি গা গুলাচ্ছে? জেনে নিন কিছু আয়ুর্বেদিক টোটকা, উপকার মিলবে

কখন ডাক্তার দেখাবেন

প্রাথমিক পর্যায়ে জরায়ু ক্যান্সার ধরা পড়লে চিকিৎসার ফলাফল ভালো হয়। অতএব, লক্ষণগুলি সনাক্ত করা এবং অবিলম্বে চিকিত্সার পরামর্শ নেওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। নিম্নলিখিত উপসর্গ দেখা দিলে অবিলম্বে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা উচিত-

  1. প্রস্রাব করার সময় অবিরাম ব্যথা
  2. অস্বাভাবিক যোনি রক্তপাত
  3. ক্রমাগত পেলভিক ব্যথা
  4. যোনি স্রাব
  5. প্রস্রাবের পরিবর্তন।

এটা কিভাবে নির্ণয় করা হয়

লক্ষণগুলি দেখা দিলে, ডাক্তার নিম্নলিখিত পরীক্ষার আদেশ দিতে পারেন:

পেলভিস পরীক্ষা:

এই পরীক্ষাটি গর্ভাশয়ে বা অন্যান্য প্রজনন অঙ্গের কোনো ব্যাধি শনাক্ত করার জন্য করা হয়।

ট্রান্সভ্যাজিনাল আল্ট্রাসাউন্ড:

ছবির মাধ্যমে এন্ডোমেট্রিয়ামের পুরুত্ব দেখার জন্য এই পরীক্ষা করা হয়।

এন্ডোমেট্রিয়াল বায়োপসি:

এতে, জরায়ুর আস্তরণ থেকে একটি নমুনা নেওয়া হয় এবং এর প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষা করা হয়।

হিস্টেরোস্কোপি:

এতে জরায়ুর ভেতরটা সরাসরি দেখা যায়।

আরও পড়ুন: গর্ভাবস্থার পরে দ্রুত ওজন কমাতে চান? আপনার খাদ্যতালিকায় এই ৫ টি খাবার অন্তর্ভুক্ত করুন

প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা এবং সচেতনতা

বিশেষ করে অল্পবয়সী মহিলাদের মধ্যে জরায়ু ক্যান্সারের ক্রমবর্ধমান প্রকোপ রোধ করতে সচেতনতা এবং সময়মত চিকিৎসা অপরিহার্য। কিছু প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা হল:

  1. রুটিন চেকআপ
  2. বার্ষিক পেলভিক পরীক্ষা এবং প্যাপ স্মিয়ার
  3. ক্যান্সারের পারিবারিক ইতিহাস থাকলে জেনেটিক কাউন্সেলিং এবং পরীক্ষা করা প্রয়োজন।
  4. আপনার হরমোনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখুন। যদি প্রয়োজন হয়, মেনোপজের উপসর্গের সময় হরমোন রিপ্লেসমেন্ট থেরাপির (HRT) জন্য আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। প্রোজেস্টেরন ছাড়া ইস্ট্রোজেন জরায়ু ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।
  5. জন্মনিয়ন্ত্রণ পিলের দীর্ঘমেয়াদী ব্যবহার এন্ডোমেট্রিয়াল ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে পারে কারণ তারা হরমোনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে।
  6. জীবনধারার উন্নতি
  7. পুষ্টিকর খাবার এবং নিয়মিত ব্যায়ামের মাধ্যমে আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন।
  8. শিথিলকরণ কৌশল এবং ব্যায়াম অনুশীলন করে চাপ নিয়ন্ত্রণ করুন।
  9. ধূমপান করবেন না এবং অ্যালকোহল সেবনে সংযম বজায় রাখুন।

যাওয়ার সময়

ভারতে জরায়ু ক্যান্সারের ক্রমবর্ধমান ঘটনা, বিশেষত অল্পবয়সী মহিলাদের মধ্যে, সচেতনতা, সময়মত রোগ নির্ণয় এবং কার্যকর ব্যবস্থাপনা অপরিহার্য হয়ে উঠেছে। উপসর্গের সময়মত স্বীকৃতি এবং সঠিক চিকিৎসা বেঁচে থাকার সম্ভাবনা বাড়ায়। জনস্বাস্থ্য কর্মসূচির মূল ফোকাস হওয়া উচিত নারীদের এই সমস্যার ঝুঁকি ও লক্ষণ সম্পর্কে শিক্ষিত করা এবং ঝুঁকি কমাতে স্বাস্থ্যকর জীবনধারার প্রচার করা।

NEWS24-BENGALI.COM

NEWS24-BENGALI.COM brings to provide the latest quality Bengali News(বাংলা খবর, Bangla News) on Crime, Politics, Sports, Business, Health, Tech, and more on Digital Platform.

Edtior's Picks

Latest Articles

Copyright © 2024 NEWS24-BENGALI.COM | All Rights Reserved.