‘রাফাল দুর্নীতি’ নিয়ে ফের তদন্ত শুরু ফ্রান্সে

by Chhanda Basak

ওয়েব ডেস্ক: ফরাসী ন্যাশনাল ফিনান্সিয়াল প্রসিকিউটর অফিস (পিএনএফ) শুক্রবার জানিয়েছে, এবার এক ফরাসি বিচারকের তত্ত্বাবধানে “দুর্নীতি” সন্দেহের ভিত্তিতে ২০১৬ সালের ভারতে সাথে বহু-বিলিয়ন ডলার বিতর্কিত রাফাল যুদ্ধ বিমানের বিতর্কিত ছুক্তির তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ফরাসি সংবাদমাধ্যম মিডিয়াপার্টের প্রতিবেদন সূত্রে মিলেছে এমনই খবর।

‘rafale দুর্নীতি’ নিয়ে ফের তদন্ত শুরু ফ্রান্সে

ভারত সরকার এবং ফরাসি বিমান নির্মাতা ডাসল্টের মধ্যে ৩৬ টি বিমানের জন্য ৭.৮-বিলিয়ন-ইউরো ( ৯.৩ বিলিয়ন ডলার) যা ভারতিও টাকাই ৫৯,০০০ কোটি চুক্তি দীর্ঘদিন ধরেই দুর্নীতির অভিযোগে জড়িত। এর আগে চলতি বছর এপ্রিলে রাফাল চুক্তিতে একাধিক দুর্নীতির অভিযোগ প্রকাশিত হয় মিডিয়াপার্টেরই একাধিক রিপোর্টে।

এই রিপোর্টগুলির মধ্যে একটিতে ফ্রান্সের পাবলিক প্রসিকিউশন সার্ভিসের আর্থিক অপরাধ শাখার (PNF) প্রাক্তন প্রধান, ইলাইন হোলিটের বিরুদ্ধে তদন্তে দুর্নীতির অভিযোগ তোলা হয়। সেখানে বলা হয়, সহকর্মীদের আপত্তি সত্ত্বেও ইলাইন রাফাল জেট চুক্তির তদন্ত হঠাত্ বন্ধ করে দেন। কারণ হিসাবে ইলাইন জানান, ‘ফ্রান্সের এবং সংস্থাগুলির স্বার্থের কথা ভেবেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’ ইলাইনের পরে এখন পিএনএফের প্রধান জিন-ফ্রানসোইস বোহনার্ট। তিনি পদ গ্রহণ করেই তদন্ত পুনররাম্ভ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এবার প্যাথলজিক্যাল টেস্টের খরচ বেঁধে দিল রাজ্য, জারি নির্দেশিকা

রাফাল চুক্তি সই হওয়ার সময়ে বর্তমান ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রন অর্থমন্ত্রী ছিলেন। দুই সরকারের মধ্যে চুক্তির মাধ্যমে জরুরি ভিত্তিতে ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে ভারত যুদ্ধবিমানের অর্ডার দেয়। কংগ্রেসের নেতৃত্বে বিরোধী দলগুলি এই চুক্তির স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন তোলে।

বিরোধীদের দাবি, বর্তমান সরকারের তত্ত্বাবধানে ভারত এক একটি যুদ্ধবিমান কিনছে ১,৬৭০ কোটি টাকা করে। এদিকে ইউপিএ সরকার যখন এই বিমানই কেনার পরিকল্পনা করছিল, ৫২৬ কোটি টাকা করে প্রাথমিক বিডে দাম উঠেছিল। অর্থাত্ প্রায় তিন গুণ দামে বর্তমান সরকার একই বিমান কিনছে বলে অভিযোগ। আর এখানেই দুর্নীতির গন্ধ পাচ্ছেন বিরোধীরা।

শুধু তাই নয়। কংগ্রেসের দাবি, সেই সময়ে এই দামেই প্রযুক্তির হস্তান্তর চুক্তিও পেত ভারত। তাতে পরবর্তীকালে রাফাল বিমানের প্রযুক্তি ভারতীয় বিমান তৈরিতে প্রয়োগ করা যেত। কিন্তু বর্তমানের বেশি দামের চুক্তিতে সেই বিষয়ে কোনও উল্লেখই নেই।

অতিমারির ভয়ঙ্কর পর্যায় আসছে, মন্তব্য WHO প্রধানের

কি ঘটেছিল ঘটনা:

ডাসল্টের ২০১২ সালে ভারতে ১২৬ টি জেট সরবরাহের জন্য একটি চুক্তি সাক্ষর করে এবং এর জন্য ভারত সরকারের সংস্থা হিন্দুস্তান অ্যারোনটিকস লিমিটেডের (এইচএল) সাথে আলোচনা চলে।

ডাসল্টের দাবি অনুসারে, ২০১৫ মার্চ পর্যন্ত এই আলোচনাগুলি কোনও সিদ্ধান্তে পৌছাতে পারে না।

কিন্তু সেই বছরের এপ্রিলের শেষে প্রধানমন্ত্রী মোদী ফ্রান্সে সরকারী সফরে যান এবং হটাৎ করে একটা নতুন ছুক্তি চূড়ান্ত করেন। সেখানে হলা হয়, HAL এর পরিবর্তে রিলায়েন্স গ্রুপ, যার অ্যারোনটিকসের কোনও অভিজ্ঞতা নেই তাদের সাথে চুক্তি চূড়ান্ত হইএছে এবং ৩৬ টি জেট ফ্রান্স থেকে সরাসরি কেনে হবে।

যদিও এনডিএ সরকার রাফালের দামের বিষয়ে কোনও তথ্য প্রকাশ করেনি। তবে বর্তমান সরকারের দাবি, ২০১২-র ইউপিএ আমলের চুক্তি, কার্যকর ছিল না। প্রাক্তন প্রতিরক্ষামন্ত্রী মনোহর পরিকর নিজেই বলেন যে, এই দামে কখনই রাফাল বিমানগুলি কেনা যেত না। ওটা নিলামে প্রাথমিক দর মাত্র। আর সেই কারণেই ইউপিএ সরকার ২০১৪ সাল পর্যন্ত এই চুক্তি করতে সক্ষম হয়নি।

ফের বিতর্কে বিশ্বভারতী এবং তার উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী

কিন্তু এত বড় অঙ্কের চুক্তি বিষয়ে তথ্য কেন প্রকাশ করছে না বর্তমান সরকার?

এনডিএ সরকারের দাবি, দামের বিষয়ে দুটি কারণে কিছু বলা যাবে না-

  • প্রথমত, ফ্রান্সের সঙ্গে গোপনীয়তার চুক্তি, এবং
  • দ্বিতীয়ত, ভারতের শত্রু দেশ যাতে প্রতিরক্ষার বিষয়ে খুঁটিনাটি জেনে না যায়।

তবে খরচ বৃদ্ধির কারণ হিসাবে বলা হয় যে, এই চুক্তিতে কাস্টমাইজড অস্ত্রশস্ত্র দেওয়ার কথাও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে, কম্পট্রোলার অ্যান্ড অডিটর জেনারেল অব ইন্ডিয়া এই চুক্তি যাচাই করেন। ‘জেটগুলির জন্য ভারত অতিরিক্ত দাম দেয়নি,’ বলে জানানো হয় সেই রিপোর্টে। 

সুপ্রিম কোর্টে এই চুক্তির বিষয়ে জনস্বার্থ মামলা হয়। ২০১৯ সালের নভেম্বরে রাফাল চুক্তিতে কোনও অসামঞ্জস্য নেই বলে জানায় সর্বোচ্চ আদালত।

NEWS24-BENGALI.COM

NEWS24-BENGALI.COM brings to provide the latest quality Bengali News(বাংলা খবর, Bangla News) on Crime, Politics, Sports, Business, Health, Tech, and more on Digital Platform.

Edtior's Picks

Latest Articles

Copyright © 2024 NEWS24-BENGALI.COM | All Rights Reserved.